বাংলাদেশ থেকে খুব তাড়াতাড়ি মুসলিম নিধন হবে।
ইসলাম বিদ্ধেষী, নাস্তিক শাহরিয়া কবির,
ভারতীয় ইসকন নামক সংঘটনের সাথে জড়িত।
এজন্য তিনি প্রতি মাসে ৬০%
(প্রায় ৬০,০০০) টাকা করে ইসকনের কাছ থেকে পান,
বোনাস বাবদ পান ৪ লাখের ও বেশী

ইসকনের কাজ কি? উদ্দেশ্য কি?

ইসকনের পুরো অর্থ হলো>
ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর কৃষ্ণ কনশাসনেস (ইসকন)

ইসকনের উদ্দেশ্য হল বাংলাদেশে রাম রাজত্ব কায়েম করা!
এবং বাংলাদেশ দখলের সুযোগ সৃষ্টি করা। অখন্ড ভারত তৈরী করা।

ইসকন বিলিয়ন মেঘা প্রজেক্ট নিয়ে বাংলাদেশে কাজ করতেছে
সরকারের প্রতিটি স্থরে হিন্দু নিযোগে তাদের সর্বোচ্চ সহায়তা চালিয়ে যাওয়া!

বর্তমানে তাদের দলে,প্রশাসন থেকে শুরু করে রাষ্টের অনেক গুরুপ্তপুন্য পদ তাদের দখলে
যারা তাদের বিরুদ্ধে যাবে তাদের বাধ্য করা বা কঠোর হওয়া,(এমন কি হত্যা করা)
ভারতের RSS এর নিদেশনা অনুযায়ী ২০২০-২০৩০। এর ভিতর বড় সড় একটি সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সৃষ্টি করা,

নিজেদের মন্দির /বাড়ি ও ব্যক্তির উপর নিজেরা পরিকল্পিত হামলা করে মুসলামানের উপর দোষ চাপিয়ে দেওয়া!
সেই সুযোগে দাঙ্গা সৃষ্টি করে হিন্দু -মুসলিম সংঘর্ষ লাগিয়ে টানা ২-৪ মাস চলতে দিবে।

পক্ষান্তরে ভারতে হিন্দুত্বববাদি উগ্রপন্থি সন্ত্রাসী সংঘটন RSS
বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলবে

তখন হিন্দু রক্ষার নামে ভারত থেকে বাংলাদেশে ভারতীয় সেনা পাঠানো হবে,তখন কোন বাঁধা ছাড়ায় ভারতীয় বাহিনী বাংলাদেশে ডুকতে পারবে! (( কারণ ৯ এপ্রিল, ২০১৭ · প্রকাশন তারিখ : 2017- 04-09 বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ২২টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছে। তার মধ্য একটি চুক্তি বাংলাদেশ সেনা ও ভারতীয় সেনা একসাথে কাজ করতে পারবে,সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে, তাতে নেতৃত্ব দিবে ভারতের সেনা বাহিনী)

তখন বাংলাদেশের অনেক নেতা মন্ত্রীর চেয়ার থাকবে কিন্তুু ক্ষমতা থাকবে না।
এবং অনেক নেতা মন্ত্রীর, বিদেশে ২য় বাড়ী আছে,মালশিয়া সিঙ্গাপুর,লন্ডন,আমেরিকা,যুক্তরাজ্য, এসব জায়গার ভারতের হুমকির মুখে দেশ ছাড়বে, অন্যথায় গুম করে ফেলবে।

আর ২০৪১ সালের দিকে ৭৫ ভাগ বাংলাদেশ ভারতের দখলে চলে যাবে!

তবেই শেষ নয়” তখন পাকিস্থান, ভারত,বাংলাদেশ কাশ্মীর নিয়ে এরেকটি যুদ্ধ সুচনা হবে,
হতে পারে রাসুলের ভবিষৎ বানী গযওয়াতুল হিন্দ যুদ্ধ!

লেখক: রাফি চৌধুরী

Share This Post