কওমি মাদ্রাসার সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আল হাইয়াতুল উলইয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ও হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসকদের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।
তবে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে।

সোমবার (৮ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তার ছোট ছেলে হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষা পরিচালক ও হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা আনাস মাদানী।
তিনি দেশবাসীর কাছে আল্লামা শফীর সুস্থতায় জন্য দোয়া চেয়েছেন।

এছাড়া কওমি অঙ্গনে দেশের এ র্শীষ আলমের মৃত্যু নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকসহ নানা মাধ্যমে প্রচারিত বিষয়টি গুজব বলে জানান আনাস মাদানী।
সোমবার দুপুরের পর থেকে একটি কুচক্রী মহল এ গুজব ছড়িয়েছে বলে দাবি করে তিনি বলেন, আব্বাজানের (আল্লামা শফী) শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে এখন উন্নতির দিকে।

এদিকে সোমবার জোহরের নামাজের আগে চমেক হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন শতর্বষী বয়সী প্রবীণ এই আলেমের জ্ঞান ফিরেছে বলে হেফাজত আমিরের খাদেম মাওলানা মুহাম্মদ নোমান আল হাবীব এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, হুজুরের চিকিৎসার অবস্থার বিষয়টি সিদ্ধান্ত নিতে মেডিকেল র্বোড গঠন করা হয়ছে।
সোমবার দুপুর ১২টায় চমেক হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগের প্রধান ডা. রঞ্জন কুমার নাথ ও মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. সুজত পালের নেতৃত্বে এই মেডিকেল বোর্ড বৈঠকে বসেছিল।

আল্লামা শফীর খাদেম আরও জানান, রোববার সন্ধ্যার পর হুজুরকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই দিন কয়েক ঘন্টার মধ্যে হুজুরের অবস্থা হঠাৎ সংকটাপন্ন হওয়ায় রাত ৮টার দিকে ওই হাসপাতালের আইসিইউতে নেয়া হয়।
এ সময় আল্লামা শফীর রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা ৮০ এর নিচে নেমে এসেছিল।
তবে সোমবার সকাল থেকে তার শ্বাসকষ্ট কমে আসে এবং রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা প্রায় ৯৭ এর ওপরে উঠেছে।

বর্তমানে তিনি গঠিত মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে নিবিড় পর্যবেক্ষণে স্বাভাবিক রয়েছেন। এছাড়া মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকদের পরার্মশে হুজুরের শরীরের বেশ কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। এসব পরীক্ষার রিপোর্টও ভালো এসেছে।

প্রসঙ্গত, শতবর্ষী প্রবীণ আলেম আল্লামা আহমদ শফী দীর্ঘদিন যাবৎ বার্ধক্যজনিত দুর্বলতার পাশাপাশি ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, শ্বাসকষ্ট এবং হজমজনিত সমস্যায় ভুগছেন। বার্ধক্যের কারণে এসব রোগ মাঝেমধ্যেই অনিয়ন্ত্রিত হয়ে যায়।
রোববার বিকালে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে রাত ৮টার দিকে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।
এর আগে গত ১৪ এপ্রিল অসুস্থ আল্লামা শফীকে চট্টগ্রাম থেকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় নেয়া হয়েছিল।
এরপর ঢাকার গেণ্ডারিয়ার আজগর আলী হাসপাতালে ১২দিন চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে ২৬ এপ্রিল হেলিকপ্টার যোগে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসায় তার নিজস্ব প্রতিষ্ঠানে আসেন।

Share This Post