দেশের বৃহৎ কওমি মাদরাসা ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রবিন্দু হাটহাজারী মাদরাসার শূরা কমিটির বৈঠক শুরু হয়েছে।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আজকের বৈঠক থেকে আল্লামা আহমদ শফীর পর মাদরাসার মহাপরিচালক কে হবেন সে সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

বুধবার সকাল ১০টায় হাটহাজারী মাদরাসায় মজলিসে শূরার বৈঠক শুরু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন হাটহাজারী ওলামা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও হেফাজত নেতা মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়েজী।
মাওলানা জাকারিয়া নোমান বলেন, ‘কিছুক্ষণ আগে শূরার বৈঠক শুরু হয়েছে। ঘণ্টাখানেকের মধ্যে সিদ্ধান্ত আসতে পারে। শূরায় বিভিন্ন বিষয়ে আলাপ হবে, এর মধ্যে মাদরাসার পরবর্তী মহাপরিচালক কে হবেন, সেটাও আলোচনা হতে পারে।’

জানা গেছে, হাটহাজারী মাদরাসার বর্তমান মহাপরিচালক ও হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী বয়সজনিত নানা শারীরিক জটিলতায় ভুগছেন। সম্প্রতি কয়েক মাস ধরে বেশ কয়েক দফা অসুস্থ হয়ে চট্টগ্রাম ও ঢাকার বেশ কয়েকটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন তিনি। সর্বশেষ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে এক সপ্তাহ চিকিৎসা নেন তিনি।
সর্বশেষ গত সোমবার (১৫ জুন) সুস্থ হয়ে মাদরাসায় ফিরেই তিনি শূরা কমিটির বৈঠক আহ্বান করেন।

এর কারণ হিসেবে জানা গেছে, আল্লামা আহমদ শফী যখন অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তখন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে মাদরাসার ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ঘোষণা করা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়।
তবে তখন এর বিরোধিতা করে আরেকটি পক্ষ পরিচালক পদে তাদের পছন্দের লোককে বসানোর চেষ্টা শুরু করে। এ জন্য মাদরাসার বেশ কয়েকজন সিনিয়র শিক্ষকের নামও প্রস্তাব করা হয়।

ফলে মাদারাসার পরিচালকের পদ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে মতবিরোধ তৈরি হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষ পরস্পর মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও লেখালেখি করছে দু পক্ষ।

জানা গেছে, দুই পক্ষের এই উত্তেজনাকর পরিস্থিতি এড়াতে আল্লামা আহমদ শাহ শফী আজ তড়িঘড়ি করে বৈঠকের আহ্বান করেন।
এমন প্রেক্ষাপটে হাটহাজারী মাদরাসার শূরা কমিটির সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশের কওমি মাদরাসা, ইসলামী দলগুলোর নেতাকর্মীদের ব্যাপক কৌতূহল রয়েছে। চলমান মজলিসে শূরার এ বৈঠক থেকে মাদরাসার মহাপরিচালক হিসেবে কারও নাম ঘোষণা আসতে পারে, এমনটা মনে করছেন অনেকে।

জানা গেছে, এবারের বৈঠকটি ২০১৭ সালের পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এই বৈঠক নিয়ে কেউ সরাসরি বক্তব্য না দিলেও সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে, আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী বার্ধক্যজনিত অসুস্থতাসহ নানা রোগে ভুগছেন। তিনি চান নিয়মতান্ত্রিকভাবে শূরার সিদ্ধান্তক্রমে পরবর্তী মহাপরিচালক নির্বাচন করা হোক।
তবে কার কাঁধে এই গুরুদায়িত্ব পড়বে সেটা জানতে মজলিসে শূরা শেষ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

Share This Post