করোনাকালে ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবাইকে সমান চিকিৎসা দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার ভিআইপি কালচারে বিশ্বাসী নয়। এ সংকটে এমন চর্চাকে সরকার নিরুৎসাহী করে।

রোববার (২৮ জুন) রাজধানীর সংসদ ভবন এলাকায় সরকারি বাসভবনে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সরকারি হাসপাতালসহ চিকিৎসা বিষয়ক সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করছি, সাধারণ রোগী ও উচ্চবিত্ত রোগীদের কোনও বাছ-বিচার নয়, সবাইকে সমান চোখে দেখে চিকিৎসা করুন।

অনিয়ম–দুর্নীতির বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা সরকারের অবস্থান স্পষ্ট জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, শুধু স্বাস্থ্য খাতেই নয়, যেকোনো খাতের অনিয়ম, অন্যায়, দুর্নীতি রোধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জিরো টলারেন্স নীতিতে অটল। অপরাধী দলীয় কিংবা ক্ষমতাবান হলেও ছাড় দেওয়া হবে না।
করোনার এই সংকটে দেশের কয়েকটি জেলায় বন্যা দেখা দেওয়ায় তাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের আহ্বান জানিয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক।

হাসপাতালগুলোর ব্যবস্থাপনা এবং সমন্বয় বাড়াতে স্বাস্থ্য বিভাগের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।
তিনি বলেন, বিভিন্ন গবেষণা ও গণমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী করোনায় আক্রান্ত অনেক রোগী বাসাবাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাঁদের সেবা ও প্রয়োজনীয় ডাক্তারি পরামর্শ পেতে টেলিমেডিসিন সেবা ও হটলাইনে সেবার মান বাড়ানোর অনুরোধ করেন তিনি।

সরকারি দলের এ মন্ত্রী বলেন, করোনার এমন সংক্রমণে কাছের মানুষ দূরে চলে যায়, মুহূর্তেই প্রিয়জন অচেনা হয়ে যায়। মা-বাবা কিংবা স্বামী স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখে চলে যাচ্ছে। মৃত্যুর পর কেউ কাছে আসছে না, করুন মর্মস্পর্শী বিষয়।
পুরোটা জীবন প্রিয়জনের জন্য করে শেষবিদায় নিচ্ছেন প্রিয় মানুষের স্পর্শহীনতায়। মমতার বন্ধনহীন এসব দৃশ্য।

Share This Post