Spread the love

কারাবন্দী মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী আবারও ওয়াজ করতে চান। মানুষকে কুরআনের বানী শুনাতে চান। শেষবারের মতো করতে চান হজ্বও। আর তার মৃত্যু যেন মদীনাতে হয় এবং মৃত্যুর পর জান্নাতুলবাকীতে তার দাফন চান তিনি।

মানবতাবিরোদী অপরাধের মামলায় আমৃত্যু কারাদণ্ডপ্রাপ্ত মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী ছেলে মাসুদ সাঈদী গতকাল সোমবার বকশি বাজারের আলিয়া মাদ্রাসার অস্থায়ী আদালতে তার সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান।

মাসুদ সাঈদী বলেন, বাবার সঙ্গে করোনাভাইরাসে কারনে দীর্ঘ নয়মাস পর ৫ মিনিটের জন্য সাক্ষাৎ হয়েছে। তিনি শারীরিকভাবে দুর্বল হলেও মানসিকভাবে খুবই দৃড় রয়েছেন। দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

আর বলেছেন, এটি মিথ্য মামলা, এটি নিয়ে যাতে কেউ বিভ্রান্ত না হন। মাসুদ সাঈদী আরও বলেন, এটি ভিত্তিহীন মামলা। ২০১০ সালে মামলাটি দায়ের হলেও সরকার চার্জ গঠন করতে পারেনি। হঠাৎ করে জনগণের দৃষ্টি ভিন্ন দিকে ফেরাতে এবং দেলোয়ার হোসাইন সাঈদীর চরিত্র হননের উদ্দেশ্যে মামলাটি চালু করা হয়েছে।

এদিকে সাঈদীর আইনজীবী মতিউর রহমান আকন্দ বলেন, এ মামলার তদবিরকারক শামীম সাঈদী ও মাসুদ সাঈদীকে আদালতে প্রবেশ করতে দেওয়া হতোনা। আদালতের দৃষ্টিতে আনার পর তাদেরকে কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার সুযোগ দিয়েছেন।

সাঈদী ৮২ বছরের বৃদ্ধ হওয়ায় নিজ খরচে আদালতে আনা-নেয়ার জন্য যানবহনের ব্যবস্থা করতে আবেদন করলে আদালত তাও মঞ্জুর করেছেন বলে জানান তিনি। এর আগে জাকাত তহবিলের অর্থ আত্মসাৎ মামলায় দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে সকালে প্রিজন ভ্যানে করে কাশিমপুর কারাগার থেকে বিশেষ জজ আদালতে হাজির করা হয়।

এসময় সাঈদীর সকালের নাস্তা হিসেবে পরোটা, ডিম ও ডাল সরবরাহ করেন তার ছেলে শামীম সাঈদী। তবে তা ভেতরে পাঠানোর আগে পুলিশের সামনে খেয়ে দেখাতে হয়। পরে সময় আবেদনের প্রেক্ষিতে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১১ জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত

সুত্র: নয়া দিগন্ত

 

Share This Post