Spread the love

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার বিখ্যাত ইউটিউবার জে কিম। ধর্মান্তরিত হওয়ার পর তিনি আগের নাম বদলে নতুন নাম রাখেন। নবী হযরত দাউদ (আ.) এর সঙ্গে মিলিয়ে নিজের নাম রাখেন দাউদ কিম। জে কিম ইসলাম গ্রহণের সেই সোনালি মুহূর্তটির একটি ভিডিও আপলোড করেছেন তার ইউটিউব চ্যানেলে। সেটি ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়ে গেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

ইসলাম গ্রহণের পর বদলে গেছে জে কিমের ইউটিউব চ্যানেলের কাভার পিকচারও। কালো গম্বুজে তার নামের ওপরে লিখে দিয়েছেন ‘আলহামদুলিল্লাহ!’

ইউটিউবে আপলোড করা জে কিমের ইসলাম গ্রহণের ছয় মিনিটের দেখা যায়, ঈমানের প্রাথমিক বিষয়গুলো তাকে শেখাচ্ছেন একজন ধর্মীয় বিজ্ঞ ব্যাক্তি (আলেম)। সেটি মগ্ন হয়ে অবনত মস্তকে শুনছেন জে কিম। তার মধ্যে এক ধরণের ভক্তি লক্ষ্য করা গেছে।

ইউটিউবার জে কিম আগে থেকেই ইসলামের সৌন্দর্য ফুটিয়ে তুলে বিভিন্ন বিষয়ে ব্লগ করতেন। ওইসব ব্লগে ধর্মের প্রতি তার অনুরাগ প্রকাশ পেয়েছে। তার ইউটিউব চ্যানেলের সাবসক্রাইবার প্রায় ছয় লাখ।

ইসলাম গ্রহণের পর জে কিম লিখেন, ‘যখন থেকে আমি ইসলাম ধর্মের প্রতি আগ্রহী হলাম, আমার জীবনের অনেক কিছুই পরিবর্তন হয়ে গেছে। আমি এখনো পূর্ণ প্রস্তুত নই, তবুও একটু একটু করে ভালো মুসলিম হয়ে উঠব। যদিও আমি আগে অনেক পাপ করেছি, এখন তওবা করে শুদ্ধ হতে চাই। আমি জন্মগত মুসলিম নই। কিন্তু আমার বিশ্বাস—আল্লাহ সব সময় আমার সঙ্গেই ছিলেন। সঠিক পথ দেখানোর জন্য আল্লাহর শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।’

আরো পড়ুন: গুগল র‌্যাংকিংয়ে বিশ্বের সেরা মহামানব হযরত মুহাম্মাদ (সা.) !

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব সর্বশেষ নবি ও রাসুল হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। গুগল ডটকম-এর র‌্যাংকিংয়েও বিশ্বের সেরা মহামানব হিসেবে স্থান পেয়েছেন তিনি।

গুগলে ‘who is the best man in the world- হু ইজ দ্য বেস্ট ম্যান ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’ লিখে সার্চ করলেই যে তালিকা চলে আসে তার মধ্যে প্রথমেই দেখায় হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নাম। এটাই বাস্তব।

যে কেউ চাইলে গুগলে ‘who is the best man in the world- হু ইজ দ্য বেস্ট ম্যান ইন দ্য ওয়ার্ল্ড’ লিখে চেক করে দেখতে পারেন। ন্যয়, ইনসাফ ও শান্তির বার্তাবাহক হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সর্বশ্রেষ্ঠ নির্বাচন করে শান্তির এ বার্তাই পৌছে দিচ্ছে গুগল।

গুগলের এ তথ্য এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এভাবে ভাইরাল যে- Best Man In The World ’Prophet Muhammad’. অর্থাৎ নবি মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, বিশ্বের সেরা মহামানব।

খ্রিস্টানদের ধর্মবিশ্বাস অনুসারে হজরত ঈসা আলাইহিস সালাম থেকেও হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সর্বাধিক প্রথম অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব। সমগ্র মুসলিম বিশ্ব ও মুসলিম উম্মাহ এ খবরটি উদযাপন করছে।

তথ্য, মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামের ছবি ও উপদেশের ব্যাপক প্রচার, প্রসার ও অনুসরণ-অনুকরণই এর জলন্ত প্রমাণ। সবচেয়ে আনন্দর ও আশ্চর্যের বিষয় হলো- ইউরোপের দেশগুলোতে হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নামে শিশুর নামকরণ ‘মুহাম্মাদ’ নামে সবচেয়ে বেশি বিখ্যাত ও জনপ্রিয়।

১৯৭৮ সালে মাইকেল এইচ হার্ট লিখিত ‘দ্য 100’ বইয়ের সর্ব প্রথম ও সেরা ব্যক্তিত্ব হিসেবে স্থান করে নিয়েছেন বিশ্বনবি হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। পরবর্তীতে এ গবেষক ১৯৯২ সালের বইটির পুনঃমুদ্রণ করেন,

সেখানেও হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নাম ও মর্যাদা অব্যাহত থাকে। মানব ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হয়। মহান আল্লাহ তাআলা অশেষ শুকরিয়া ও অনুগ্রহ যে, তিনি তাঁর প্রিয় সৃষ্টি হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের মর্যাদা সবচেয়ে বেশি দান করেছেন এবং অব্যাহত রেখেছেন।

অনাদি-অনন্তকাল তা বজায় থাকবে। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সুমহান আদর্শ প্রচার ও নিজেদের জীবনে তা বাস্তবায়ন করে বিশ্বের সামনে তাঁর সঠিক দ্বীনের বার্তাগুলো তুলে ধরার তাওফিক দান করুন। আমিন

আরো পড়ুন: ফরাসি পণ্য বর্জন করা সকল মুসলমানের ঈমানী দায়িত্ব: আল্লামা বাবুনগরী

হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব শায়খুল হাদিস আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বলেছেন, ২০১৫ সালে ফ্রান্সের কুখ্যাত রম্য পত্রিকা শার্লি এবদো কর্তৃক বিশ্ব মানবতার মুক্তিদূত হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম এর

ব্যাঙ্গচিত্র প্রকাশের পর মুসলমানদের হৃদয়ে যে রক্তক্ষরণ সৃষ্টি হয়েছিল তার রেশ কাটতে না কাটতেই রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় আবারো মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লামকে অবমাননায় বিশ্ব মুসলিম চরমভাবে ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ। বর্তমান পরিস্থিতিতে ফরাসি পণ্য বর্জন করা মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব।

ফ্রান্সের সাথে বানিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন ও সবধরনের ফরাসি পণ্য বর্জন করতে হবে এবং ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে তলব করে এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাতে হবে।

আজ মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) ফ্রান্সে মহানবী হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লামকে অবমাননা ও দেশটির প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁর ইসলাম অবমাননাকর বক্তব্যের প্রতিবাদে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

বর্তমানে ফ্রান্সে রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলামবিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে উল্লেখ করে আল্লামা বাবুনগরী বলেন, ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোর ইসলামবিদ্বেষী বক্তব্যের পর সরকারী ভবনে মহানবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম এর অবমাননাকর ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শন একই সূত্রে গাঁথা।

ফ্রান্সের এ ইসলামবিদ্বেষ ও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম এর অবমাননায় বিশ্বের দুইশত কোটি মুসলমান ব্যথিত ও ক্ষুব্ধ। ফ্রান্সকে এহেন জঘন্য কর্মকান্ড বন্ধ করতে বাধ্য করতে হবে এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে ইসলাম ও মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহী ওয়া সাল্লাম এর অবমাননার প্রতিবাদ করতে হবে। বিক্ষুব্ধ মুসলমানদের হৃদয়ের ক্ষত মুছতে হলে ফ্রান্সকে রাষ্ট্রীয়ভাবে ক্ষমা চাইতে হবে। তা না হলে সারা দুনিয়ার মুসলমানরা রাজপথে নেমে আসবে।

হাটহাজারী উপজেলা হেফাজতের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জাকারিয়া নোমান ফয়জীর সভাপতিত্বে এতে আরও উপস্থিত ছিলেন হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ও হেফাজতের শুরা সদস্য মাওলানা নাছির উদ্দিন মুনির, হাটহাজারী ওলামা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হাটহাজারী উপজেলা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জাফর আহমদ,

হেফাজত হাটহাজারী পৌরসভা শাখার সভাপতি মাওলানা মীর ইদ্রিস,মাওলানা হাফেজ আলী আকবর, মুহাম্মাদ আহসান উল্লাহ,মাওলানা জাহাঙ্গীর আলম মেহেদী,মাওলানা মাহমুদ হোসাইন,মাওলানা শফিউল আলম,মাওলানা কামরুল ইসলাম,মাওলানা নিজাম সাইয়্যিদ ও মাওলানা ইকবাল প্রমূখ নেতৃবৃন্দ

আরো পড়ুন: মহানবী (সা.)-এর অবমাননার প্রতিবাদে ‘মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদে কসোভোর এমপি !

‘আমি মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদ অধিবেশনে অংশগ্রহণ করে মহানবী (সা.)-এর অবমাননার প্রতিবাদে অংশগ্রহণ করেন কসোভোর একজন সংসদ সদস্য।

গতকাল রবিবার (২৫ অক্টোবর) কসোভো সংসদের সাধারণ অধিবেশনে অংশগ্রহণ করেন সেল্ফ ডিটারমিনেশন মুভমেন্টের সদস্য ইমান আর রহমানি। এমন মাস্ক পরিধান করার দুটি কারণ উল্লেখ করে আর রহমানি বলেন, ‘ফ্রান্সে নিযুক্ত কসোভার রাষ্ট্রদূত ক্যান্ড্রিম গাসি মহানবী মুহাম্মাদ (সা.)-এর

Share This Post