Spread the love

কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত এবং জড়িতদের বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করছেন সুপ্রিম কোর্টের সাধারণ আইনজীবীরা।

রোববার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনের চত্বরে এ কর্মসূচি পালন করেছেন শতাধিক আইনজীবী।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন- সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক মো. মোমতাজ উদ্দীন আহমেদ মেহেদি, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের আইন

বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন, ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বি এম আবদুর রহমান রাফেল, এ কে এম তোহিদুর রহমান, জগলুল কবির, মাহফুজুর রহমান লিখনসহ অনেকে।

বক্তব্যে ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, একাত্তর সালে যারা বলেছেন, যারা পাকিস্তানের বিরোধীতা করবে তারা আর মুসলমান থাকবে না।

যারা এসব কথা বলেছেন তারা এসব কথা বলে তো আর পাকিস্তান আটকাতে পারেন নাই, এ দেশে রাখতে পারেন নাই। এদের বংশধররাই আজকে বলে এটা মূর্তি, এটা প্রতিমা। এসব কথা বলে।

এটা এই স্বাধীনতার স্বপক্ষের সরকারের বিরোধিতা করার জন্যই, ইসলাম প্রতিষ্ঠা এদের কোনো উদ্দেশ্যে না। এদের উদ্দেশ্যে হচ্ছে প্রকৃত অর্থে এ সরকারের পতন

ঘটনো। ‘পাকিস্তান, সৌদি আরব, ইরানে কিংবা তুরস্কে যখন এরদোগানের ভাস্কর্য হয় তখন তারা বলে এসব পবিত্র। একমাত্র বাংলাদেশের জাতির পিতা

যার ভাস্কর্য হওয়ার পর যেটা আমাদের বাঙালিদের অনুভূতির সঙ্গে সম্পর্কিত, পৃথিবীর কোনো জায়গা পাবেন না যে, অনুভূতিতে আঘাত দেওয়া হয়।

আমাদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) কখনো ধর্ম প্রচার করতে গিয়ে কারো অনুভূতিতে আঘাত দেননি। আমার কাছে মনে হচ্ছে, যারা মূর্তি এবং ভাস্কর্যের

বিতর্ক শুরু করেছে এদের ওপর রাজাকার, আল-বদর, আল-শামস, যুদ্ধাপরাধীদের প্রেতাত্মারা ভর করেছে। আমি সরকারের কাছে দাবি

জানাবো, যারা এই ভাস্কর্য ভাঙচুর করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি তো দিতেই হবে। আপনারা যাচাই করে দেখেন, যারা ভাস্কর্য ভেঙেছেন, তাদের রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় আনা যায় কি না এটা সিনিয়ররা ভাববেন।’

ব্যারিস্টার সুমন আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু মানেই বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু মানেই স্বাধীনতা। যারা এই বঙ্গবন্ধুর অনুভূতিকে ধারণ করি তাদের যারা আঘাত দিয়েছেন তারা যাই হোকে কোনো দিন প্রকৃত মুসলমান

Share This Post