ঈদ উপলক্ষে চাঁদা না পেয়ে বগুড়ার ধুনট ইউনিয়ন পরিষদের সচিবকে মারধরের অভিযোগে সৌরভ হাসান জিম (২৩) নামে ছাত্রলীগ নেতাকে আটকের পর কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

সৌরভ হাসান জিম উপজেলার মাটিকোড়া গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে এবং ধুনট ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহসভাপতি।

আজ বুধবার বিকেল ৪টার দিকে ধুনট থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে তাকে বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার রাতে তাকে মাটিকোড়া গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় দুই বছর ধরে ধুনট ইউনিয়ন পরিষদে সচিব পদে চাকরি করেন শারিরীক প্রতিবন্ধী মনিরুজ্জামান। তিনি উপজেলার চান্দারপাড়া গ্রামের জহুরুল ইসলামের ছেলে।

মঙ্গলবার বিকেলে পরিষদের কার্যালয়ে ভিজিডির চাল বিতরণ কার্যক্রম পরিচালনা করতে থাকেন সচিব মনিরুজ্জামান।

এ সময় সৌরভ হাসান জিম তার লোকজন নিয়ে ওই কার্যালয়ে গিয়ে সচিব মনিরুজ্জামনের নিকট এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন।

কিন্ত চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় সৌরভ হাসান ও তার লোকজন মনিরুজ্জামানকে মারধর করে। এ সময় ইউপি চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপে পরিবেশ শান্ত হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে মনিরুজ্জামান বাদী হয়ে সৌরভ হাসান ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করেন।

এদিকে সোমবার বিকেলের দিকে ধুনট-শেরপুর সড়কের হুকুম আলী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ব্যবসায়ী সচিব হোসেনকে মারপিটের অভিযোগে সৌরভ হাসানের বিরুদ্ধে পৃথক একটি মামলা দায়ের হয়। এই মামলায় সৌরভকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

ইউপি সচিব মনিরুজ্জামান বলেন, সৌরভ হাসানের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দেওয়ার পর বিভিন্ন মহলের চাপের মুখে পড়েছি।

এছাড়া আমি শারীরিক প্রতিবন্ধী একজন মানুষ। সহজে চলাচল করতে পারি না। এ কারণে ঝামেলা এড়াতে থানায় মামলা রজু করার আগ্রহ নেই।

ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, চাঁদা না পেয়ে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় সচিবের অভিযোগটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

তবে সজিব নামে এক ডেকোরেটর ব্যবসায়ীকে মারপিটের অভিযোগে করা মামলায় সৌরভ হাসানকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Share This Post