Spread the love

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী অভ্যুত্থানের পর ভেঙে দেওয়া পার্লামেন্টের সদস্যসহ সবাইকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে পার্লামেন্ট কমপ্লেক্স খালি করার নির্দেশ দিয়েছে।

প্রথমে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সরকারি ভবন খালি করার জন্য বলা হয়। কিন্তু পরে তা ২৪ ঘণ্টায় নামিয়ে আনে সামরিক বাহিনী।

নভেম্বর মাসে নির্বাচিত নতুন পার্লামেন্টের সদস্যরা দুই সপ্তাহ ধরে প্রশাসনিক রাজধানী নেপিদোতে জড়ো হতে থাকেন। আগের এমপি ও তাদের পরিবারের সদস্যরা সরকারি ভবনে ছিলেন।

১ ফেব্রুয়ারি অধিবেশন শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে অভ্যুত্থান ঘটিয়ে এমপিদের আটক করা হয়।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাদেরকে বাড়ি ফিরে যেতে বলা হয়। তবে সেনা অভ্যুত্থানকে স্বীকৃতি না দেয়ার কারণে অনেক এনএলডির এমপিই থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

প্রথমে পার্লামেন্ট ভবন ছেড়ে যেতে না চাইলেও পরে নিজেদের জিনিসপত্র নিয়ে বেরিয়ে যেতে দেখা যায় এমপিদের।

সরকারি অতিথি ভবন ছেড়ে যেতে এই এমপিদের ২৪ ঘণ্টা সময় বেঁধে দিয়ে নোটিশ দিয়েছে সামরিক বাহিনী।

সু চির এনএলডির কেন্দ্রীয় ইনফরমেশন কমিটির সদস্য ইউ কি টোয়ে বলেন, এমপি নির্বাচিতদের বলে দেওয়া হয়েছে দলের নেতাদের সিদ্ধান্তের জন্য অপেক্ষা করতে।

ফলে ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নেপিদোতে অপেক্ষা করবেন বলে এনএলডির একজন এমপি জানিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে এনএলডি প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট, স্টেট কাউন্সেলর সু চিসহ সবাইকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে নির্বাচনের ফলকে সম্মান দেখানোর আহ্বান জানিয়েছে।

সর্বশেষ অবস্থান জানিয়ে উচ্চকক্ষে পুনর্নির্বাচিত এনএলডি সদস্য ইউ অং কি নিয়ুন্ট বলেন, ২৪ ঘণ্টা পর সামরিক বাহিনীর ট্রাক তাদের সরিয়ে নিতে পারে।

ফেসবুকে সরকারি গেস্ট হাউজে পার্লামেন্টের অধিবেশন শুরুর একটি ঘোষণা দেওয়ার পরই সামরিক বাহিনী ২৪ ঘণ্টার সময়সীমা বেঁধে দেয়।

নিয়ুন্ট বলেন, ‘এমপিরা ছেড়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। নির্বাচিত প্রতিনিধি হিসাবে বেসামরিক প্রশাসনের প্রতিরোধ আন্দোলন মেনে নিতে চাই। সংবিধানের ইচ্ছাকে আমি প্রাধান্য দেব।’

Share This Post