স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য জানিয়েছেন, যশোরে তার সংসদীয় এলাকার সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে টাকা ছাড়া কোনো কাজ হয় না।

তিনি জানান, গত সপ্তাহে তার একটি জমি রেজিস্ট্রি করতে গেলে দুর্নীতির রেট অনুযায়ী টাকা দিতে না পারায় সেই জমি রেজিস্ট্রি হয়নি। তার এ অবস্থা! তাহলে জনগণের কী অবস্থা!

আরও জানুন

গতকাল বুধবার উপজেলা প্রশাসন ও বেসরকারি সংস্থা এমআরডিআই আয়োজিত আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত জনসচেতনতামূলক সমাবেশে একথা বলেন তিনি। সেখানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন যশোর-৫ (মণিরামপুর) আসনের সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য।

তিনি বলেন, ‘আমি সংসদ সদস্য, আমি মন্ত্রী। আমার ছেলের নামে একটি জমির দলিল করতে পাঠিয়েছিলাম। রেজিস্ট্রি অফিসে দুর্নীতির একটি রেট আছে। ওই রেট অনুযায়ী ঘুষের টাকা না দিলে জমি রেজিস্ট্রি হয়নি। এক সপ্তাহ আগের কথা। আমি লজ্জায় এ কথা কারও কাছে বলিনি।’

সমাবেশে প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, কখনও মিথ্যা তথ্য দেওয়া উচিত নয়। আমরা যেখানে কথা বলছি, একটি অফিস দেখছি সেখানে। সেখানে সাইনবোর্ডে লেখা আছে, আমি এবং আমার অফিস দুর্নীতিমুক্ত। এই তথ্য কি সঠিক? সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে টাকা ছাড়া কোনো কাজ হয় না।

ওই সাইনবোর্ড দেখিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এই লেখা কি মানুষ বিশ্বাস করে? আমি নিজে ঘুষের রেট অনুযায়ী টাকা দিয়ে জমির দলিল করিয়েছি।

এসব লেখা সাইনবোর্ড দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। আমি বলছি, আজ থেকে এই সাইনবোর্ড যেন আর না থাকে। যদি এই সাইনবোর্ড থাকে, তাহলে দুর্নীতি থাকতে পারবে না।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন মণিরামপুর পৌরসভার মেয়র কাজী মাহমুদুল হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ জাকির হাসান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী ও জলি আকতার, এমআরডিআইর নির্বাহী পরিচালক হাসিবুর রহমান, যশোর থেকে প্রকাশিত গ্রামের কাগজের সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন প্রমুখ।

আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস উপলক্ষে এই জনসচেতনতামূলক সমাবেশে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষক- শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও স্থানীয় গণমান্য ব্যক্তি অংশ নেন।

Share This Post