Spread the love

চীন সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায় ‘উইঘুরদের ওপর গণহত্যা’ চালিয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসনাল এক্সিকিউটিভ কমিশন কমিটি । বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিদলীয় ঐকমত্যের ভিত্তিতে গঠিত কংগ্রেসনাল-এক্সিকিউটিভ অন চীনা (সিইসিসি)জানায়, নতুন নথিপত্রে গত বছর জিনজিয়াংয়ে ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ’ দেখা গেছে, সম্ভবত সেখানে ‘গণহত্যা’ ঘটছে।

প্রতিবেদনে উইঘুরদের ওপর চীনের এমন পদক্ষেপকে বেদনাদায়ক এবং নজিরবিহীন বলে উল্লেখ করেছেন সিইসিসি-এর সহ-সভাপতি ডেমোক্র্যাট প্রতিনিধি জিম ম্যাকগোভারন। সেইসঙ্গে তিনি কংগ্রেস এবং আসন্ন বাইডেন প্রশাসনকে চীনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, কয়েক লাখ উইঘুর মুসলিমদের বন্দিশিবিরে এবং তাদের ওপর নির্মম অত্যাচার চালাচ্ছে বলে চীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। জাতিসংঘ জানিয়েছে, ১০ লাখের বেশি উইঘুর মুসলিমকে বন্দিশিবিরে আটকে রেখেছে চীন। তবে চীন বরাবরই এসব অভিযোগ মিথ্যা বলে প্রত্যাখ্যান করেছে।

আলজাজিরা জানায়, প্রকাশিত এ প্রতিবেদনেরও নিন্দা জানিয়েছে চীনা সরকার। জিনজিয়াং পরিস্থিতি নিয়ে বিবৃতিতে বেইজিং জানায়, সেখানে উগ্রপন্থা থেকে মানুষকে মুক্ত করতে তাদের কারিগরি শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে। উইঘুরদের ডিটেনশন সেন্টারে বন্দী করে রাখার খবর প্রকাশ হলেও চীনা কর্তৃপক্ষ জানাচ্ছে, সেগুলো কারিগরি শিক্ষা কেন্দ্র। তাদের দাবি, সেখানে মানুষের দক্ষতা বাড়ানো হচ্ছে।

এদিকে জাতিসংঘ বলছে, অন্তত ১০ লাখ উইঘুর ও অন্যান্য মুসলিম গোষ্ঠীর লোককে জিনজিয়াংয়ে জোরপূর্বক আটক করে রাখা হয়েছে।

Share This Post