আফগানিস্তানের নতুন সরকারকে সরকারকে স্বাগত জানিয়েছে চীন।

আজ বুধবার (০৮ সেপ্টেম্বর) বেইজিংয়ে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, কাবুলে নতুন অন্তর্বর্তী সরকার গঠনের মাধ্যমে দেশটিতে তিন সপ্তাহের বেশি সময় ধরে চলা অরাজক পরিস্থিতির অবসান ঘটেছে। একই সঙ্গে আফগানিস্তানে শান্তি ও শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে তালেবানের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। খবর আল জাজিরার।

চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিনের বলেন, আফগানিস্তানের সার্বভৌমত্ব, স্বাধীনতা ও আঞ্চলিক অখণ্ডতাকে বেইজিং শ্রদ্ধা করে।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের নিন্দা জানিয়ে চীন বলছে, তারা অপরিকল্পিত এবং তাড়াহুড়ায় সব করেছে। বুধবার চীনের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, নতুন সরকার দেশে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনবে বলে আশা করেন তারা।

যদিও বিশ্বের অধিকাংশ দেশই তালেবানদের সাথে সম্পৃক্ততার জন্য অপেক্ষা করবে বলে জানিয়েছে, কিন্তু চীন ইতিমধ্যে বলেছে তারা তালেবানদের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তুলতে প্রস্তুত।

বিশ্লেষকরা বলছেন, কাবুলে একটি স্থিতিশীল ও সহযোগিতামূলক প্রশাসন চীনের জন্য অর্থনৈতিক সুযোগ খুলে দেবে এবং তার ব্যাপক বৈদেশিক অবকাঠামো অভিযান, বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভের সম্প্রসারণের অনুমতি দেবে।

তালেবান হয়তো চীনকে অর্থনৈতিক সহায়তার গুরুত্বপূর্ণ উৎস এবং সম্ভাব্য মূল মিত্র হিসেবে দেখতে পারে।

Share This Post