ভারতের হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকারের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের প্রতিবাদে গত শুক্রবার বাদ জুম’আ জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকররম, হাটহাজারী ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আন্দোলনরত ছাত্র, মুসল্লীদের উপর পুলিশ-সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের বর্বরোচিত হত্যা এবং হামলার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত সকাল-সন্ধ্যা শান্তিপূর্ণ হরতাল পালনকে কেন্দ্র করে হেফাজত কর্মী ও তাওহীদি জনতার সাথে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া এবং গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিতে শফিকুল ইসলাম ও শাহাদাত নামে দুজন গুলিবিদ্ধসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন।

রোববার (২৮ মার্চ) বেলা ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত দফায় দফায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ফায়ারে গুলিবিদ্ধ দুজনকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ৬টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল, সাইনবোর্ড, সানারপাড়সহ বেশ কয়েকটি মাদরাসার ছাত্র ,শিক্ষক, হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মী ও তাওহীদি জনতা একত্রিত হয়ে হরতালের সমর্থনে মিছিল করে ঢাকা- চট্টগ্রাম মহাসড়কের শিমরাইল এলাকায় অবস্থান নেন।

এ সময় মহাসড়কে বেশ কয়েকটি স্থানে টায়ারে আগুন ধরিয়ে এবং রাস্তায় ইট বিছিয়ে সড়ক অবরোধ করে বেশ কয়েকটি পয়েন্টে দফায় দফায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।

এ সময় পুলিশ ও বিজিবি তাদের পিকেটিং করতে বাধা দিলে হেফাজত নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ শটগানের গুলি ও কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করে।

Share This Post