Spread the love

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) সকালে ভিকটিমের মা বাদি হয়ে মামলা করলে একইদিন বিকেল ৪টায় উপজেলার চৌমুহনী বাজারের সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সামনে থেকে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজান পাঠান অভিযুক্ত আসামিকে আটক করে।

আটক আবদুল মতিন (৬০) উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের আমিনা বাড়ির মৃত আবদু রবের ছেলে।

বেগমগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, গত শনিবার (৫ ডিসেম্বর) দুপুরে চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের একটি বাসায় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। বুধবার সকালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য (১৩) বছর বয়সী ওই স্কুলছাত্রীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

তিনি আরও জানান, ভিকটিমের মা নোয়াখালী বিসিকে চাকরি করে। সে তার মায়ের সাথে নানীর বাসায় বসবাস করে। ঘটনার দিন দুপুরে তৃতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রী বাথরুমে গোসল করতে যায়। ওই সময় পাশের ঘরের আবদুল মতিন তাকে জোরপূর্বক বাথরুমে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে বিষয়টি সামাজিকভাবে মীমাংসা করার চেষ্টা চলে। পরে ভিকটিমের মা এ ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযুক্ত আসামিকে আটক করে।

ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার বলেন, আগামীকাল আটক আসামিকে গ্রেফতার দেখিয়ে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

Share This Post