Spread the love

বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার প্রথম হিজাবি মন্ত্রী নাইদা হুতা মুমিনোভিক। সারায়েভো প্রাদেশিক সরকারের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। বসনিয়ার ইতিহাসে তিনিই প্রথম হিজাব পরা মন্ত্রী।

গত ১২ জানুয়ারি সারায়েভো প্রদেশের ইডেন ফোর্টও নেতৃত্বাধীন নতুন সরকারের কাছে শপথ গ্রহণ করেন তিনি। বসনিয়ার নতুন সরকারের শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি। এর আগে গত নভেম্বর সারায়েভোর জোট সরকারের পদত্যাগের পর নতুন সরকার গঠন করা হয়।

মুমিনোভিকের জীবনের পুরো সময় কেটেছে অধ্যয়ন ও অধ্যাপনায়। একটি স্কুলের ইংরেজি বিষয়ের শিক্ষিকা হিসেবে জীবনযাত্রা শুরু করেন তিনি। অতঃপর বসনিয়ার একটি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

মুমিনোভিক ১৯৮১ সালে সারায়েভো নগরীতে জন্মগ্রহণ করেন। বসনিয়া ও হার্জেগোভিনায় যুদ্ধ শুরু হলে সপরিবারে অস্ট্রিয়ায় পাড়ি জমান। ১৯৯৬ সালে যুদ্ধ শেষ হলে ফের বসনিয়ায় ফিরে আসেন। সবনিয়ার একটি কলেজ থেকে তিনি উচ্চমাধ্যমিক পাঠ সম্পন্ন করেন।

অতঃপর সারায়েভো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি ভাষা সাহিত্য ও আইন বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। এরপর ইংরেজির শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন শুরু করেন তিনি। পারিবারিক জীবনে হুতা মুমিনোভিক বিবাহিত ও দুই সন্তানের জনক। ২০১৫ সাল থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

বসনিয়া ও হার্জাগোভিনায় নারীদের অংশগ্রহণ নিয়ে আনাদোলু এজেন্সিকে মুমিনোভিক বলেন, ‘সারায়েভো সরকারের বিভিন্ন পদে মাত্র চারজন নারী দায়িত্ব পালন করছেন।’ সরকারি পদে ও নেতৃত্বে আরো বেশি নারীদের অংশগ্রহণের আহ্বান জানিয়ে মুমিনোভিক বলেন, ‘প্রশাসনে অনেক নারীর অংশ্রগহণ জরুরি। রাজনৈতিক ক্ষেত্রে ও সিদ্ধান্ত গ্রহণে নারীদের এগিয়ে আহ্বানে আমরা এখনো সূচনালগ্নে।’

নারীদের নিজের প্রতি আস্থাবান হওয়ার আহ্বান করে মুমিনোভিক বলেন, ‘নারীদের আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে এবং নিজেকে কখনো দুর্বল ভাবা যাবে না। নতুবা রাজনৈতিক জীবনে এগিয়ে চলা সম্ভব নয়।’

বসনিয়ার ও হার্জেগোভিনায় ১৯৯২ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত তিন বছর ব্যাপী নির্মম যুদ্ধের পর ডেটন শান্তি চুক্তি অনুষ্ঠিত হয়। চুক্তি মতে পুরো অঞ্চলকে দুটি ফেডারেল অঞ্চলে বিভক্ত করা হয়। একটি বসনয়িা ও হার্জেগোভিনা। অপরটি সার্বিয়া অঞ্চল। বসনিয়ার অন্তর্ভূক্ত ১০ টি প্রদেশে নিজস্ব সরকার ও প্রশাসন আছে। সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি

Share This Post