বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাজাহান খান বলেছেন, আমরা চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে। বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি আমরা চাঁদাবাজ নই। চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন, চাঁদাবাজি থাকবে না।

আজ শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি, বাংলাদেশ বাস ট্রাক ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন যৌথভাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শাহজাহান খান পাঁচ দফা দাবি উপস্থাপন করেন।

শাজাহান খান বলেন, চাঁদাবাজি অনেক কমেছে। তবে ভোলার চরফ্যাশনসহ পৌরসভা মেয়ররা যেভাবে টোল নেন, তা বৈধ না। তাদের চিহ্নিত করা হয়েছে, সবার নাম প্রকাশ করে দেবো।

চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন, চাঁদাবাজি থাকবে না। এর বিরুদ্ধে আমারা সারা দেশের শ্রমিকদের নির্দেশ দিয়েছি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও বলেছেন দেখবেন, কিন্তু সেটা আজও হলো না।

এক প্রশ্নের জবাবে শাজাহান খান বলেন, সরকারের দায়িত্ব হচ্ছে আমাদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া। আমাদের বলা হয়েছে, গাড়ির বাম্পার, এঙ্গেল অপসারণ করতে— আমরা করেছি।

আমাদের সড়ক দুর্ঘটনা রোধে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, আমরা ১১১টি সুপারিশ দিয়েছি। সুতরাং এই চেইনের সঙ্গে যুক্তদের মতামত নিতে হবে। শুধু বিশেষজ্ঞদের কথা শুনে সিদ্ধান্ত নিলে হবে না। তারা মাঠের মানুষের সেন্টিমেন্ট বোঝেন না। এ বিষয়ে আমরা বিশেষজ্ঞ, আমাদের কথাও শুনতে হবে।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শ্রমজীবীদের জন্য ফিল করেন, তাই তিনি জেলেদের পর্যন্ত অনুদানের ব্যবস্থা করেন। গতবার লকডাউনে শ্রমিকদের অনুদান দেওয়ার কথা প্রধানমন্ত্রী বলেছেন। তবে এবার অনুদানের ব্যবস্থা রাখা হলো না কেন? সামনে ঈদ, বিষয়টা বিশেষজ্ঞরা বিবেচনা করলেন না!

সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়েরর সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছি। কিন্তু সেখান থেকে বলা হলো, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেছি, তাকে ধন্যবাদ, তিনি শুনেছেন। তিনি বলেছেন, আলোচনা করে জানাবেন। কিন্তু পরে আর জানাননি।

এ সময় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি মসিউর রহমান রাঙ্গা, মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্লাহ, শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী উপস্থিত ছিলেন।

সুত্রঃ ডেইলি স্টার

Share This Post