সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেতে জিম্বাবুয়েকে ২৯১ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। হারারেতে তামিম ইকবাল এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের হাফ সেঞ্চুরিতে এই লক্ষ্য দাঁড় করাতে পেরেছে সফরকারীরা। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে জয়ের জন্য ২৯১ রান তাড়া

করতে নেমে প্রথম ওভারেই উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। হাসান মাহমুদের অফ স্টাম্পের বাইরের বল খেলতে গিয়ে উইকেটকিপার মুশফিকুর রহিমকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তাকুওয়াদনাশে কাইতানো। ডানহাতি এই ব্যাটার আউট

হয়েছেন শূন্য রানে। মাধেভেরে ফেরার পর সিকান্দার রাজাকে সঙ্গে নিয়ে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন তাদিওয়ানাশে মারুমানি। তবে সেই জুটি খুব বেশি বড় হতে দেননি তাইজুল ইসলাম।

বাঁহাতি এই স্পিনারের বল অনসাইডে খেলতে গিয়ে শর্ট কভারে ক্যাচ দেন মারুমানি। ড্রাইভ দিয়ে মিরাজ দারুণভাবে ক্যাচ নিলে ২৫ রানে ফিরতে হয় বাঁহাতি এই ওপেনারকে। হাসানের পর বল হাতে

জিম্বাবুয়ের শিবিরে আঘাত হেনেছেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ডানহাতি এই অফ স্পিনারের বলে সুইপ করতে গিয়ে বলের লাইন মিস করেন ওয়েসলে মাধেভেরে। ফলে বল সরাসরি মাধেভেরের প্যাডে আঘাত হানে। জোরালো

আবেদনে আউট দেন আম্পায়ার। ১৬ বলে মাত্র ২ রান করে সাজঘরে ফিরেছেন মাধেভেরে। ফলে পাওয়ার প্লেতে ৩ উইকেট হারিয়ে মাত্র ৩০ রান তোলে জিম্বাবুয়ে।নিজের দ্বিতীয় ওভারে বোলিংয়ে এসে ইনোসেন্ট কাইয়াকে

ফেরালেন হাসান। ডানহাতি এই পেসারের অফ স্টাম্পের বাইরের গুড লেংথ ডেলিভারিতে উইকেটকিপার ‍মুশফিকের গ্লাভসে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান কাইয়া। ডানহাতি এই ব্যাটার এদিন ফিরেছেন মাত্র ৭ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর-

বাংলাদেশ- ২৯০/৯ (৫০ ওভার) (মাহমুদউল্লাহ ৮০*, তামিম ৫০, আফিফ ৪১, শান্ত ৩৮; সিকান্দার ৩/৫৬)।

জিম্বাবুয়ে- ১০৯/৪ (২৫ ওভার) (কাইয়া ৭, মারুমানি ২৫, রাজা ৪২*, চাকাভা২৭; হাসান ২/১৪, মিরাজ ১/১১)

Share This Post