শেরপুরের শ্রীবরদীতে মোটরসাইকেল কিনার টাকা না দেওয়ায় পেট্রোল দিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় মাকে পুড়িয়ে হ’’ ত্যা করার অ’ভিযোগ ওঠেছে ছে’লের বি’রুদ্ধে। অ’ভিযু’ক্ত ছে’লে হানিফ মিয়াকে (১৪) গ্রে’ফতার করেছে শ্রীবরদী থা’না পু’লিশ। হানিফ পৌর শহরের সদাগর ওরফে সদা মিয়ার ছে’লে।

১১ অক্টোবর গভীর রাতে পৌরশহরের তাতিহাটী পশ্চিম মহল্লায় এই ঘটনা ঘটে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) বিকেলে হানিফকে গ্রে’ফতার করে জে’ল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।অ’ভিযোগ ও থা’না সূত্রে জানা গেছে, ১১ অক্টোবর সকালে মোটর সাইকেল ক্রয় করার জন্য হানিফ তার মা মোছা: হনুফা বেগম (৪০) এর নিকট টাকা চায়।

টাকা না দেওয়ায় হানিফ গভীর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় মায়ের শরীরে পেট্রোল ছিটিয়ে গ্যাস লাইট দিয়ে আ’গুন ধরিয়ে দেয়। পরে বাড়ির লোকজন হনুফা বেগমকে উ’দ্ধার করে প্রথমে শেরপুর সদর হাসপাতাল পরবর্তীতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে নিয়ে ভর্তি করেন।

পরে হনুফার অবস্থা আশ’ঙ্কাজনক হওয়ায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লের কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জন ইনস্টিটিউটে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) সকালে মা হনুফার মৃ’ত্যু হয়।

এ ঘটনায় নি’হতর বড় ভাই দুলাল মিয়া বাদী হয়ে শ্রীবরদী থা’নায় একটি অ’ভিযোগ দায়ের করেছেন।এ ব্যাপারে শ্রীবরদী থা’নার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্ম’দ রুহুল আমিন তালুকদার বলেন, অ’ভিযোগের প্রেক্ষিতে হানিফ মিয়াকে গ্রে’ফতার করে জে’ল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

শ্ব’শুরবা’ড়ির উ’ঠোনের মাটি খুঁড়ে মিলল নি’খোঁ’জ গৃ’হব’ধূর লা’শ ক’ক্সবা’জারের মহেশ’খালী’তে ছয় দিন নি’খোঁ’জ থাকার পর শ্ব’শুর’বাড়ির উঠোনে মাটি খুঁড়ে পাও’য়া গেছে গৃহ’বধূ আফ’রোজা’র লা’শ’। শনিবা’র রাতে ম’হেশখা’লী উপজে’লার কা’লার’মা’রছড়া ইউ’নিয়’নের উত্তর নলবি’লা এলাকা থেকে লা’শ’টি উ’দ্ধা’র করা হয় বলে জানি’য়েছেন মহেশ’খালী থা’নার ওসি আ’বদুল হাই।

নি’হ’ত আফ’রোজা বেগম (২৪) হোয়ানক ইউনি’য়নের পুঁ’ইছড়া এলাকার মোহাম্ম’দ ই’সহা’কের মে’য়ে। তার স্বা’মী রাকিব হাসা’ন বাপ্পী চ’করিয়া উপজে’লার বদ’রখা’লী ডিগ্রি ক’লেজের প্রভাষ’ক। তিনি উত্তর ন’লবিলা এলাকা’র হা’সান বশিরের ছে’লে।

ওসি ব’লেন, গত ১২ অ’ক্টোবর শ্বশু’রবা’ড়ি থেকে আ’ফরো’জা বেগম ‘নি’খোঁ’জ’ হন। এ ঘট’নায় তার বাবা মো’হাম্ম’দ ইসহাক বাদী হয়ে রাকিব হাসা’ন বাপ্পী’কে প্রধা’ন আ’সা’মি করে চা’রজ’নের বি’রু’দ্ধে থা’নায় অ’ভিযো’গ করেন।

স্বজ’নদের পাশাপা’শি পু’লিশ বিভিন্ন স্থা’নে খোঁ’জ নিয়েও আফ’রোজার স’ন্ধান পাচ্ছিল না। ম’হেশ’খালী থা’না পু’লিশ শনিবা’র রাত ১১টায় আফ’রোজা’র লা’শ’ উ’দ্ধা’র করে তার স্বামী রাকিব হাসান বাপ্পি’র বাড়ির আঙি’নায় মাটির নিচে পুঁতে রাখা অব’স্থায়।

স্থানী’য়রা জানান, এক বছর আগে বাপ্পির সঙ্গে আফ’রোজা’র বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে তা’দের মধ্যে পারিবা’রিক কলহ চল’ছিল। পা’রিবারি’ক ক’লহে’র জে’রে নারী ও শি’শু নি’র্যা’তন দমন ট্রা’ইব্যু’নালে মা’ম’লা পর্যন্ত গড়ায়।

কিছু দিন আগে মা’ম’লা’য় আপ’সরফা”র মাধ্য’মে বাপ্পি স্ত্রী’ আফরো’জা’কে তার বাড়ি’তে নি’য়ে যাযন। এর’ই মধ্যে গত ১২ অক্টোবর বা’প্পির মা রো’কেয়া হাসান তার পুত্র’বধূ আফরো’জা নি’খোঁ’জ হয়ে’ছে বলে আফ’রোজার’ বাবার বাড়িতে খবর দেন।

এর পর থেকে তা’কে খোঁ’জাখুঁ’জি শুরু হয়। তখন থে’কেই রা’কিব হাসান বা’প্পি বাড়ি থেকে পা’লিয়ে যান। বা’প্পির বা’ড়ি থেকে পালি’য়ে যাওয়া নিয়ে এলাকা’বাসীর মধ্যে স’ন্দেহ সৃষ্টি হয়। বাপ্পির ১ম স্ত্রী’র শি’শুক’ন্যার তথ্যমতে, শনিবার রাত ১১টায় এএসপি মহেশ’খালী সা’র্কেল ও মহে’শখা’লী থা’নার ওসি মো. আব’দুল হাই ঘটনা’স্থ’লে গি’য়ে বাপ্পি’র উ’ঠো’নের মাটি খুঁড়ে আফ’রোজা’র লা’শ’ উ’দ্ধা’র করেন।

Share This Post