পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় স্বামী-শ্বশুর মিলে এক গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে নির্যাতন চালিয়েছে। পূর্ব সেনের টিকিকাটা গ্রামের বিদুৎমিস্ত্রি বেল্লাল মল্লিক তার স্ত্রীকে গত সোমবার দুপুরে প্রচণ্ড বৃষ্টির মধ্যে পিছমোরা করে গাছে বেঁধে পেটায়। এ ঘটনা স্থানীয়ভাবে জানাজানি না হলেও প্রতিবেশী এক যুবক এ দৃশ্য মোবাইলে গোপনে ধারণ করেন।

বুধবার ওই যুবক স্থানীয় কয়েকজন সাংবাদিকদের মোবাইলের ম্যাসেঞ্জারে ভিডিওটি ছড়িয়ে দেন। পরে সাংবাদিকরা ঘটনাস্থলে গিয়ে নির্যাতন ঘটনার সত্যতা পান।

বুধবার ঘটনা স্থলে গেলে নির্যাতিত গৃহবধূ অভিযোগ করে বলেন, চার বছর আগে চট্টগ্রামে পোশাক কারখানায় চাকরি করার সময় পূর্ব সেনের টিকিকাটা গ্রামের সুলতান মল্লিকের ছেলে বিদুৎমিস্ত্রি বেল্লাল মল্লিকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক হয় ও পরে বিয়ে করি। বিয়ের পর স্বামীর আগের আরো দুটি বিয়ে নিয়ে দাম্পত্য কলহ চলে আসছিল। সোমবার দুপুরে রান্না ঘরে বৃষ্টির পানি গড়ানোকে কেন্দ্র করে শ্বশুর ও শাশুড়ির গৃহবধূর সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে শ্বশুর ও শাশুড়ি মিলে ওই গৃহবধূর স্বামীকে ক্ষেপিয়ে তোলে। পরে বেল্লাল মল্লিক তার স্ত্রীকে মারধরের একপর্যায় বৃষ্টির মধ্যে গাছের সঙ্গে বেঁধে পেটায়।

গৃহবধূ অভিযোগ করেন, তার শ্বশুরও তাকে নির্দয়ভাবে পেটায় ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। পরে সেখান থেকে তার ছোট জা উদ্ধার করে।

স্থানীয় এক যুবক নাম না বলার শর্তে জানান, ওই গৃহবধূকে প্রায়ই তার স্বামী বেল্লাল মল্লিক এভাবে নির্যাতন করে আসছে।

এদিকে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে অভিযুক্ত স্বামী ও শ্বশুর গা ঢাকা দেয়। তাদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ নুরুল ইসলাম বাদল বলেন, এ ঘটনায় কেউ কোনো অভিযোগ জানায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share This Post