Spread the love

ভারতের বিহার রাজ্যে হিন্দু যুবককে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় এক মুসলিম তরুণীকে পু’ড়িয়ে মা’রা হয়েছে। সতিশ নামে এক হিন্দু ছেলেকে বিয়ে করতে না চাওয়ায় তিন যুবক ওই মেয়েটিকে অপদস্ত করে ও কেরোসিন ঢেলে গায়ে আ’গুন ধরিয়ে দেয়।
পরে তাকে একটি গর্তে ফেলে দেয়। মেয়েটির আর্তচিৎকার শুনে তার আত্মীয়স্বজন ও গ্রামবাসী এসে তাকে উদ্ধার করে হা’স’পাতালে ভর্তি করে। এর ১৭ দিন পর রোববার মেয়েটি মা’রা গেছে।

হাস’পা’তালের বিছানায় শুয়ে মেয়েটি এক ভিডিও জবানবন্দিতে সতিশ ও তার দুই সহযোগীর নাম বলে। ভিডিওটি সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলে তা সারা দেশে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি করে এবং অবিলম্বে অভিযুক্তদের গ্রে’ফ’তারের দাবি ওঠে।

পু’লি’শের প্রতিবেদনে বলা হয়, অভিযুক্তদের সঙ্গে মেয়েটির কথা কাটাকাটি হয়। তবে তাকে নিপীড়ন করা হয়েছিলো কিনা তা আরো তদন্ত করলে জানা যাবে।

মেয়েটির মা বিহার পু’লিশের বি’রুদ্ধে অবহেলার অ’ভি’যোগ এনেছে। তিনি বলেন, দুই সপ্তাহ আগে এফআইআর দায়ের করা হলেও পু’লিশ কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

তিন বলেন, আমরা বিচার চাই। আমার মেয়ে ১৭ দিন মৃ’ত্যু’র সঙ্গে লড়েছে। আমরা অসহায়, কাপড় সেলাই করে বেঁচে আছি। সে কারণেই ওরা মেয়েটিকে পু’ড়িয়ে মেরেছে। আর চার মাস পর ওর বিয়ে হওয়ার কথা ছিলো।

পু’লিশ দাবি করে অভিযুক্তরা পালিয়ে যাওয়ায় তাদের গ্রে’ফতার করতে দেরি হচ্ছে।

বৈশালির এসপি মনিশ বলেন, মেয়েটির বয়স ১৯-২০ বছর। সে তিন জনের বি’রুদ্ধে তাকে কেরোসিন ঢেলে পু’ড়িয়ে মা’রতে চাওয়ার অ’ভি’যোগ করেছে।
গত রোববার সে মা’রা গেছে। ৩০ অক্টোবর ঘ’ট’নাটি ঘটলেও এফআইআর দায়ের করা হয় ২ নভেম্বর।

সূত্র:জিভিএস

 

Share This Post