Spread the love

সৌদি আরবের সরকার দেশটিতে অন্তত ১০০ ইমাম ও ইসলাম প্রচারককে বরখাস্ত করেছে। এরা মক্কা ও আল-কাসিমের বিভিন্ন মসজিদে ইমামতি করতেন। সরকারি নির্দেশ অনুযায়ী খুতবায় মুসলিম ব্রাদারহুডের নিন্দা না করায় তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

গত ১৩ নভেম্বর মুসলিম ব্রাদারহুডের বিরুদ্ধে খুতবায় আলোচনা করতে ইমামদের নির্দেশনা দেয় সৌদির ধর্ম মন্ত্রণালয়। কিন্তু অনেক মসজিদে এ নির্দেশনা সেভাবে পালন করা হয়নি।

দুই সপ্তাহ পর্যালোচনার পর নির্দেশ অমান্যকারীদের তালিকা করে তাদের বরখাস্তের আদেশ দিয়েছেন সৌদির ইসলাম বিষয়ক মন্ত্রী শেখ আবদুল লাতিফ আল শায়খ।

২০১৪ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে মুসলিম ব্রাদারহুডকে সন্ত্রাসী সংগঠন বলে ঘোষণা করে দেশটিতে তাদের কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করে সৌদি আরব।

সম্প্রতি দেশটিতে মুসলিম ব্রাদারহুডের বিরুদ্ধে নতুন করে প্রচারণা শুরু হয়েছে। কয়েক সপ্তাহ ধরে দেশটির কর্মকর্তা, ধর্মীয় নেতা এবং রাষ্ট্রীয় প্রচার মাধ্যমেও সংগঠনটির বিরুদ্ধে চালানো হচ্ছে প্রচারণা।

গত মাসে সৌদি গ্র্যান্ড মুফতি শেখ আব্দুল আজিজ আল-শেখ ব্রাদারহুডকে একটি ‘বিচ্যুত গ্রুপ’ বলে আখ্যা দেন এবং সংগঠনটির সঙ্গে ‘ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই’ বলেও উল্লেখ করেন। এর পরপরই সৌদি আরবের সর্বোচ্চ ধর্মীয় সংস্থা মজলিস হায়াত কিবার আল-উলামা এ বিষয়ে এক বিবৃতি দেয়।

বিবৃতিতে ব্রাদারহুডে সৌদি জনগণে যোগ দেয়া এবং তাদের প্রতি ‘সহমর্মিতা’ দেখানো বিষয়েও সতর্ক করে দেয়া হয়।

সরকারি নির্দেশে থাকা সত্ত্বেও ২০১৪ সালে সৌদি আরবে নিষিদ্ধ ঘোষণা হওয়া মুসলিম ব্রাদারহুডের বিরুদ্ধে কুৎসা করতে রাজি হননি মক্কা ও আল কাসিমের ১০০ জন ইমাম ও ইসলামিক প্রচারক। এর জেরে তাদের বরখাস্ত করার কথা ঘোষণা করল সৌদি আরবের সরকার। এর ফলে ওই ব্যক্তিরা আর কোনও ধর্মীয় অনুষ্ঠান ও সভায় বক্তব্য রাখতে পারবেন না।

 

Share This Post